জেনে রাখুন কোমর, হাঁটু ও ঘাড় ব্যথা রোগীদের ২১টি অবশ্যই করণীয় কাজ

কোমর, হাঁটু ও ঘাড় ব্যথা রোগীদের ২১টি অবশ্যই করণীয় কাজ – ১. ব্যথা বেশী হলে ৭দিন সম্পূর্ণ বিশ্রাম নিবেন। ২. নিয়মিত ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা নিবেন। ৩. ব্যথার জায়গায় গরম/ঠান্ডা স্যাক দিবেন ১০-১৫ মিনিট। ৪. বিছানায় শোয়া ও উঠার সময় যেকোন একদিকে কাত হয়ে হাতের উপর ভর দিয়ে শোবেন ও উঠবেন। ৫. মেরুদন্ড ও ঘাড় নীচু করে কোন কাজ করবেন না। ৬. নীচু জিনিস যেমন- পিড়া, মোড়া বা ফ্লোরে না বসে চেয়ারে পীঠ সাপোর্ট দিয়ে মেরুদন্ড সোজা করে বসবেন।

৭. ফোম ও জাজিমে না শোয়ে উচু শক্ত সমান বিছানায় শোবেন। ৮. মাথায় বা হাতে ভারী ওজন/ বোঝা বহন নিষেধ। ৯. দাঁড়িয়ে বা চেয়ারে বসে রান্না করবেন। ১০. ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকের নির্দেশমত দেখানো ব্যায়াম নিয়মিত করবেন, ব্যথা বেড়ে গেলে ব্যায়াম বন্ধ রাখবেন। ১১. শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন, পেট ভরে খাওয়া নিষেধ, অল্প অল্প করে বার বার খাবেন। ১২. সিঁড়িতে ওঠার সময় ধীরে ধীরে হাতল ধরে উঠবেন। ১৩. ঝরণায় বা চেয়ারে বসে গোসল করবেন। ১৪. কোন প্রকার মালিশ করা নিষেধ।

১৫. দীর্ঘক্ষণ এক জায়গায় বসে বা দাড়িয়ে থাকবেন না, ১ ঘন্টা পর পর অবস্থান বদলাবেন। ১৬. শোবার সময় একটি পাতলা নরম বালিশ ব্যবহার করবেন। ১৭. বাহিরে চলাফেরা করার সময় কোমরের বেল্ট ব্যবহার করবেন, শোবার সময় ও ব্যায়াম করার সময় অবশ্যই বেল্ট খুলে রাখবেন। ১৮. হাই হিল যুক্ত জুতা ব্যবহার করবেন না, নরম জুতা ব্যবহার করবেন। ১৯. ব্যথা তীব্র হলে উঁচু কমোডে বসে টয়লেট করবেন। ২০. চলাফেরায় ঝুকিপূর্ণ যানবাহন ও রাস্তা এড়িয়ে চলবেন ও সামনের বা মাঝামাঝি আসনে বসবেন। ২১. ব্যথা কমে গেলে নিয়মিত সমতল জায়গায় কমপক্ষে ১ ঘন্টা হাটুন।

যেসব কঠিন রোগের আগাম ইঙ্গিত দেয় নখের রঙ!

আমাদের শরীর আমাদের কঠিন রোগের ইঙ্গিত দিয়ে দেয়। আর এই ইঙ্গিত অসুস্থ হওয়ার অনেক আগে থেকেই শুরু হয়ে যায়। নিজের শরীরের দিকে নজর রাখলে, খুব সহজেই সঠিক সময় চিকিৎসা শুরু করা যায়। 2চিকিৎসকেরা বলে থাকেন, আমাদের হাত-পায়ের নখ মাঝে মধ্যেই কঠিন রোগের ইঙ্গিত দিতে থাকে। তবে অনেক সময়ই সেই উপসর্গগুলোকে আমরা এড়িয়ে চলি।

চিকিৎসকেরা বলছেন, হঠাৎ যদি দেখেন আপনার হাতের, পায়ের নখের রং হলুদ হয়ে পড়ছে, তাহলে বুঝতে হবে আপনার লিভার ও কিডনির সমস্যা হয়েছে। এরকম অবস্থায় দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ দরকার। নখের ওপর সাদা সাদা ছোপ থাকলে পেটের সমস্যা হতে পারে আপনার। দীর্ঘদিন ধরে গ্যাস, অম্বলে ভুগলে নখে এই ধরণের ছাপ হতে পারে।

নখের রং কালচে বা নীলচে হয়ে পড়লে সাধারণত, ফুসফুসের সমস্যার লক্ষণ। এই সমস্যা হলে এধরণের উপসর্গ দেখা যায়। নখ ভঙ্গুর হয়ে পড়লে সাধারণ আর্থারাইটিস হওয়ার লক্ষণ। অনেক সময় ফাঙ্গাল ইনফেকশনের জন্যও এরকম ঘটতে পারে। নখের চারপাশ থেকে চামড়া উঠলে বুঝতে হবে আপনার শরীরে পুষ্টির অভাব রয়েছে। কিংবা ফাঙ্গাল ইনফেকশনের কারণেও ঘটতে পারে এই সমস্যা।